protichinta

একবিংশ শতাব্দীতে বিশ্বায়ন এবং বৈশ্বিক অর্থনৈতিক ন্যায়বিচার

হায়দার আলী খান

সারসংক্ষেপ

এশীয় অর্থনৈতিক সংকট এবং সাম্প্রতিক কালের বৈশ্বিক অর্থনৈতিক মন্দার পর, করপোরেট-চালিত প্রক্রিয়া হিসেবে বিশ্বায়ন ন্যায়সংগতভাবেই বিস্তর সমালোচনার সম্মুখীন হয়েছে। এই প্রবন্ধে সমালোচনাসমূহের মতাদর্শগত নির্মাণকে পাশ কাটিয়ে, স্বতন্ত্রভাবে সমালোচনাসমূহকে বিশ্লেষণাত্মকভাবে উপস্থাপনের চেষ্টা করা হয়েছে। এরপর অমর্ত্য সেনের সক্ষমতা পরিপ্রেক্ষিত এবং খান, নুসবম এবং অন্যদের সম্প্রসারিত ব্যাখ্যার আলোকে বিশ্বায়নের একটি নৈতিক-নিয়মাত্মক (নরম্যাটিভ) ব্যাখ্যার ওপর জোর দেওয়া হয়েছে। স্বাধীনতাকেন্দ্রিক এই নৈতিক পরিপ্রেক্ষিত ন্যায়-নীতি এবং প্রতিষ্ঠানের ওপর জোরারোপ করে, যা বৈশ্বিকভাবে এবং স্থানীয়ভাবে স্বাধীনতাকে বর্ধিত করে। এটা দেখানো হয়েছে যে বর্তমান পরিস্থিতিতে অর্থনৈতিক দক্ষতা এবং সামাজিক ন্যায়বিচারের স্বচ্ছ মূলনীতিভিত্তিক একটি বৈশ্বিক শাসনব্যবস্থার কাঠামোই কাম্য। তবে বিশ্বায়নের বর্তমান চিড় ধরা প্রক্রিয়া শেষ পর্যন্ত একটি চিড় ধরা আঞ্চলিকতাবাদ বা এমনকি জাতীয় সংরক্ষণবাদ এবং দ্বন্দ্বে পর্যবসিত হতে পারে। তাই এখানে প্রদত্ত কার্যকাঠামোর ভিত্তিতে বহুপক্ষীয় সহযোগিতা একটি আশু প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ। এমতাবস্থায় বাণিজ্য, আর্থিক ব্যবস্থা থেকে শুরু করে পরিবেশগত, নারী এবং সংখ্যালঘুদের অধিকার ইত্যাদি ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক সহযোগিতার শাসনব্যবস্থা তৈরির বিষয়টি বৈশ্বিক, জাতীয়, সামাজিক এবং রাজনৈতিক আলোচ্যসূচিতে অবশ্যই অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। নিচ থেকে গড়ে তোলা আন্তর্জাতিক গণতান্ত্রিক আন্দোলন এই সমাজব্যবস্থার দিকে আমাদের অগ্রসর করবে।

মুখ্য শব্দগুচ্ছ

বিশ্বায়ন, বৈশ্বিক ন্যায়বিচার, সক্ষমতা, আর্থিক সংকট, বৈশ্বিক আর্থিক কাঠামো, বৈশ্বিক সমাজ।

pathok

যোগাযোগের ঠিকানা

সিএ ভবন,
১০০ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ,
কারওয়ান বাজার, ঢাকা - ১২১৫।

ফোন: ৮৮০-২-৮১১০০৮১, ৮১১৫৩০৭
ফ্যাক্স - ৮৮০-২-৯১৩০৪৯৬

protichinta kinte chile