protichinta

বিশ্ব স্বাস্থ্যের পরিপ্রেক্ষিত ও বাংলাদেশ

শাহাদুজ্জামান

সারসংক্ষেপ

বিশ্ব স্বাস্থ্যের ধারণার জন্ম হয়েছে জনস্বাস্থ্য ধারণা থেকে। জনস্বাস্থ্যে একটি জনগোষ্ঠীর সুস্বাস্থ্যের কথা বলা হয়। জনস্বাস্থ্যকে একই সাথে বলা হয় বিজ্ঞান ও শিল্প। এশিয়া-আফ্রিকার উপনিবেশগুলোতে রোগ সম্পর্কে ধারণা লাভ করতে গিয়ে ঔপনিবেশিক আমলে আন্তর্জাতিক স্বাস্থ্য ধারণাটি চালু হয়েছিল। কিন্তু বিশ্বায়নের প্রভাবে আন্তর্জাতিক স্বাস্থ্যের ধারণাটি আর টিকে থাকেনি। এর ফলে তখন তা হয়ে ওঠে বৈশ্বিক স্বাস্থ্য। বিশ্ব স্বাস্থ্য শব্দটি নানা অর্থে ব্যবহূত হলেও আন্তর্জাতিক স্বাস্থ্য ও বিশ্ব স্বাস্থ্য শব্দ দুটি সমার্থক অর্থে ব্যবহার করা হয়। বেশ কিছু কারণে বিশ্ব স্বাস্থ্য নিয়ে ভাবা প্রয়োজন। যেমন: বিশ্বের সকল দেশগুলোর মধ্যে সমতা নিশ্চিত; মাতৃমৃত্যু, শিশুমৃত্যু ও বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত মৃত্যুর হার কমানোর জন্য মানবিক সহায়তা; সার্স, বার্ড ফ্লু, এইডসের মতো রোগের সরাসরি প্রত্যক্ষ প্রভাব; বিশ্ব নিরাপত্তার প্রশ্ন এবং পারস্পরিক জ্ঞান, অভিজ্ঞতা বিনিময়। বিশ্ব স্বাস্থ্যের ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপটে ঔপনিবেশিক শাসক দেশগুলো এবং উপনিবেশগুলোর ভেতর স্বাস্থ্য, চিকিত্সাবিষয়ক যোগাযোগ ঘটেছে দুটি উপায়ে—ক্রিশ্চিয়ান মিশনারিদের ধর্মপ্রচার ও ঔপনিবেশিক শাসকদের প্রভাব। ঔপনিবেশিক দেশগুলো স্বাধীন হওয়ার পর থেকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, ইউনিসেফের মতো আন্তর্জাতিক সংস্থার উদ্যোগে বিশ্বের রোগ প্রতিরোধ এবং রোগ নির্মূলের উদ্যোগ নেওয়া হয়। বিশ্ব স্বাস্থ্যের প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশের স্বাস্থ্য খাতেও বেশ কিছু অগ্রগতি ঘটেছে, যেমন: জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার হ্রাস, মানুষের গড় আয়ু বৃদ্ধি, মাতৃমৃত্যুর হার হ্রাস, শিশুমৃত্যুর হার হ্রাস। কিন্তু বিশ্ব পরিবেশের পরিবর্তনের প্রভাব পড়েছে বাংলাদেশের মতো দেশে স্থানীয় স্বাস্থ্যের ক্ষেত্রেও। 

শব্দগুচ্ছ

আন্তর্জাতিক স্বাস্থ্য, বিশ্ব স্বাস্থ্য, জনস্বাস্থ্যবিজ্ঞান, রোগতত্ত্ব, আয়ুর্বেদীয়, ইউনানী, রোগতত্ত্ব, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, ইউনিসেফ, জনমিতি, রেডক্রস, গণস্বাস্থ্য, স্বাস্থ্যবিমা।

pathok

যোগাযোগের ঠিকানা

সিএ ভবন,
১০০ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ,
কারওয়ান বাজার, ঢাকা - ১২১৫।

ফোন: ৮৮০-২-৮১১০০৮১, ৮১১৫৩০৭
ফ্যাক্স - ৮৮০-২-৯১৩০৪৯৬

protichinta kinte chile